বাংলাদেশ তাঁত বোর্ড গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮

বাস্তবায়নাধীন প্রকল্পসমূহ

 

(১) এস্টাবলিশমেন্ট অব থ্রি হ্যান্ডলুম সার্ভিস সেন্টারস ইন ডিফারেন্ট লুম ইনটেনসিভ এরিয়া (১ম সংশোধিত)

বাস্তবায়নকালঃ জুলাই ২০১৩ - জুন ২০১৮ পর্যন্ত।

দেশের তাঁত অধ্যুষিত এলাকায় তাঁতিদের বয়নপূর্ব ও বয়নোত্তর সেবা যেমন-কাপড় রংকরণ, মার্সারাইজিং, সাইজিং, ক্যালেন্ডারিং, স্টেন্টারিং, ফোল্ডিং ইত্যাদি সেবা প্রদানের  লক্ষ্যে ৩টি সার্ভিস সেন্টার (কালিহাতি, টাঙ্গাইল, শাহজাদপুর, সিরাজগঞ্জ, কুষ্টিয়া, কুমারখালী) স্থাপন করা হচ্ছে।

ফলাফলঃ

  • প্রকল্প এলাকা এবং আশে পাশের প্রায় ১.৪০ লক্ষ তাঁতি বয়নপূর্ব ও বয়নোত্তর বিভিন্ন সেবা গ্রহণ করতে পারবে।
  • কেন্দ্রসমূহের সার্ভিসিং ক্যাপাসিটি বৃদ্ধি পাবে অর্থাৎ ৩টি কেন্দ্র হতে মোট ৪৫.০২ লক্ষ কেজি সুতা রংকরণ এবং ২৫.২২ কোটি মিটার কাপড়ে সার্ভিস প্রদান সম্ভব হবে।
  • কাপড় উৎপাদনে ত্রুটির হার হ্রাস পাইবে এবং গুণগতমানসম্পন্ন কাপড় উৎপাদিত হইবে।

 

(২) ব্যালেন্সিং মডার্নাইজেশন রিনোভেশন এন্ড এক্সপানশন (বিএমআরই) অব দ্যা এক্সিসটিং ক্লথ প্রসেসিং সেন্টার এ্যাট মাধবদী, নরসিংদী (১ম সংশোধিত)

বাস্তবায়নকালঃ জুলাই ২০১৩ - জুন ২০১৭ পর্যন্ত।

ফলাফলঃ

  • প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হইলে প্রকল্প এলাকা এবং আশে পাশের প্রায় ১.০০ লক্ষ তাঁতি বয়নপূর্ব ও বয়নোত্তর বিভিন্ন সেবা গ্রহণ করতে পারবে।
  • কেন্দ্রের বর্তমান বাৎসারিক সার্ভিসিং ক্যাপাসিটি ৩.৬৮ কোটি মিটার হতে বৃদ্ধি পেয়ে ১৭.১০ কোটি মিটারে দাঁড়াবে।
  • কাপড় উৎপাদনে ত্রুটির হার হ্রাস পাবে এবং গুণগতমানসম্পন্ন কাপড় উৎপাদিত হবে।

 

 

নতুন অনুমোদিত প্রকল্পঃ

 

 (১)  বাংলাদেশের সোনালী ঐতিহ্যমসলিনসুতা কাপড় তৈরির প্রযুক্তি পুনরুদ্ধার (১ম পর্যায়)।

বাস্তবায়নকালঃ জানুয়ারী ২০১৭ - ডিসেম্বর ২০১৯ পর্যন্ত।

নিবিড় গবেষণার মাধ্যমে মসলিনের সুতা ও কাপড় তৈরির প্রযুক্তি বের করা, পরীক্ষামূলকভাবে মসলিনের সুতা ও কাপড় তৈরি করা, “বাংলাদেশের সোনালী ঐতিহ্য” মসলিন এর হৃতগৌরব পুনরুদ্ধার করার লক্ষ্যে প্রকল্পটি প্রস্তাব করা হয়েছে। প্রকল্পটি গত ১২.০৬.২০১৮ তারিখে মাননীয় পরিকল্পনা মন্ত্রী কর্তৃক অনুমোদিত হয়েছে। এর বিনিয়োগ ব্যয় ১২১০.০০ লক্ষ টাকা।

ফলাফলঃ

  • প্রকল্পের আওতায় নিবিড় গবেষণার মাধ্যমে মসলিনের সুতা ও কাপড় তৈরির প্রযুক্তি উদ্ভাবন সম্ভব হবে।
  • সর্বোপরি, বাংলাদেশের সোনালী ঐতিহ্য মসলিন উৎপাদন সম্ভব হবে।

 

(২) বাংলাদেশ তাঁত বোর্ডের ৫টি বেসিক সেন্টারে প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, ১টি ফ্যাশন ডিজাইন ইনস্টিটিউট ও ২টি মার্কেট প্রমোশন কেন্দ্র স্থাপন

বাস্তবায়নকালঃ জানুয়ারি ২০১৮ - জুন ২০২১ পর্যন্ত।

 

প্রকল্প এলাকাঃ আড়াইহাজার, নারায়নগঞ্জ; টাংগাইল সদর, টাংগাইল; সিরাজগঞ্জ সদর, সিরাজগঞ্জ; মেলান্দহ, জামালপুর; কাহালু, বগুড়া;’ কুমারখালী কুষ্টিয়া;

দেশে দক্ষ বস্ত্র প্রযুক্তিবিদ তৈরি এবং তাঁতিদের দক্ষতা উন্নয়নের জন্য উপযুক্ত প্রশিক্ষণ প্রদান; ভোক্তার রূচি ও পছন্দ এবং পরিবর্তিত বাজার চাহিদা অনুসারে নতুন নতুন ডিজাইন উদ্ভাবন; প্রান্তিক তাঁতিদের উৎপাদিত পণ্যের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করার লক্ষ্যে প্রাতিষ্ঠানিক বাজারজাত করণের ব্যবস্থা; এবং মানব সম্পদ উন্নয়ন এবং সর্বোপরি, তাঁতিদের জীবনযাত্রার মানোন্নয়নের লক্ষ্যে প্রকল্পটি প্রস্তাব করা হয়েছে।

ফলাফলঃ

  • প্রস্তাবিত প্রকল্পের আওতায় প্রতি বছর ৫টি কেন্দ্র হতে ৩০০ জন করে মোট ১৫০০ জনকে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হবে।
  • মেলান্দহ, জামালপুর ফ্যাশন ডিজাইন ইনস্টিটিউট হইতে প্রতি বছর ৫০ জনকে ডিপ্লোমা, ২৪০ জনকে ৮টি কোর্সের উপর সার্টিফিকেট এবং ৫টি শর্ট কোর্সের উপর ১৫০ জনকে সার্টিফিকেট প্রদান করা হবে।

প্রকল্পটি গত ০৭.০৮.২০১৮ তারিখে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় অনুমোদিত হয়েছে।


Share with :

Facebook Facebook